শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:১১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
কলাপাড়ায় খাল দখল করে তোলা বহুতল ভবন ভেঙ্গে ফেলছে জেলা প্রশাসন।। কচুয়ায় অগ্নিকান্ডে পুড়েছে ৫টি বসতঘর কচুয়ার তেতৈয়া সপ্রাবি’র ভোট কেন্দ্র স্থানাস্তরের চেষ্টার অভিযোগ ॥ ক্ষোভ চরমে! কলাপাড়ায় করোনাকালীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন। কলাপাড়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ।। কলাপাড়ায় গভীর রাতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন, অর্ধলক্ষ টাকা চুরির অভিযোগ।। জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সৈকতের প্লাস্টিক বর্জ্য ও ছেড়া জাল অপসারন।। কলাপাড়ায় ফৌজদারী অপরাধে প্রাথমিক প্রধান শিক্ষিকা শ্রীঘরে।। বেলাবতে দৈনিক কালের নতুন সংবাদ পত্রিকার ৪ র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত কলাপাড়ায় ১০ অসচ্ছল সাংস্কৃতিক কর্মীকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক প্রদান।। 

কঠোর লগডাউনে ফোন পেয়ে ডাক্তার নিয়ে খেয়াঘাটে কলাপাড়ার ইউএনও।।

 কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি।। করোনা সংক্রমন বিস্তার রোধে সারা দেশের ন্যায় পটুয়াখালীর কলাপাড়াতে চলছে কঠোর লকডাউন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বন্ধ রয়েছে উপজেলা শহরের সকল ধরনের দোকানপাট ও ইঞ্জিনচালিত যানবাহন। বাজারেও মানুষের তেমন উপস্থিতি লক্ষ করা যায়নি। প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা ছিলো চোখে পরার মত। বিনা কারনে ঘরের বাইরে বের হলেই করা হচ্ছে জরিমানা আদায়। তবে এখন পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্থানান্তরিত করা হয়নি মাছ ও সবজি বাজার।
সরেজমিনে বালিয়াতলী খেয়াঘাট গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বালিয়াতলী থেকে আসা এক অসুস্থ শিশুকে দেখার জন্য ডাক্তার গোলাম মর্তুজাকে নিয়ে হাজির হয়েছেন। তিনি ঐ রোগীকে বালিয়াতলী খেয়া পার করে ডাক্তার দেখিয়ে পুনরায় বাড়ি পাঠিয়ে দেন। এবং সবাইকে বাড়িতে থাকার অনুরোধ জানান।
সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, কলাপাড়ার পরিস্থিতি খুব খারাপ অবস্থায় আছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। কলাপাড়া উপজেলা এবং মহিপুর থানার জন্য দুই প্লাটুন সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও বিজিবি এবং আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা মাঠে রয়েছে। আমি এবং সহকারী কমিশনার ভূমি’র নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ২৩ জনকে এবং শুক্রবার ১৩ জনকে অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুহাসনাত মো. শহীদুল হক জানান, এক শিশু রোগীর বাবা ফোন করলে ডাক্তার মর্তুজাকে নিয়ে গিয়েছিলাম। চিকিৎসা দিয়ে তাকে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। সর্বাত্মক লকডাউন পালনে উপজেলার সকল বাজার, খেয়া, এবং মসজিদের ইমামদের সাথে কথা হয়েছে। তিনি আরও জানান, আমার কাছে এক টন চাল রিজার্ভ রয়েছে যদি কারো খাবার অভাব থেকে থাকে তবে আপনারা জানাবেন খাবার পৌঁছে দিবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত